1. admin@dailylikonisongbad.com : admin :
  2. mdsohaghasan333@gmail.com : Sohag RAHMAN : Sohag RAHMAN
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:২১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
নীলফামারীতে ২০ পিস ইয়াবা সহ আটক ১ যশোরে ট্রেন‌ আটকে আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ যশোরের সাধারণ শিক্ষার্থীর বিক্ষোভ মিছিল ও অবরোধ কর্মসূচি। যশোর সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের স্টোরে চুরির ঘটনায় স্বাস্থ্য বিভাগের তোলপাড় কোটা বিরোধীদের উপর হামলা ও নৃশংস হত্যার প্রতিবাদে ঝিনাইদহে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল সম্পন্ন যশোরে ট্রেন‌ আটকে আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ যশোরে পিস্তল, গুলি ও বার্মিজ চাকু সহ গ্রেফতার ০১। মোরেলগঞ্জে পরিবহনের ধাক্কায় ভ্যানগাড়িসহ খাল পড়ে কৃষকলীগ নেতা নিহত নবরূপে সুসজ্জিত হচ্ছে মাগুরার শালিখা ‘ইকো-পার্ক. নড়াইল সদর থানা কর্তৃক ১০০(একশত) পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন গ্রেফতার

রমজানে খেজুরের দাম নিয়ে ক্রেতাদের হতাশা

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৩ মার্চ, ২০২৪
  • ১৩ বার পঠিত

 

আবু সালেহ সেহতাব

সহ বার্তা সম্পাদক

 

শুরু হয়েছে পবিত্র মাহে রমজান। সারা দিন পানাহারে বিরত থেকে সিয়াম সাধনার পর ইফতারে খেজুর মুখে দেন প্রায় সব মুসল্লি। রোজাদাররা মনে করেন, এই ফল দিয়েই ইফতার করতেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) কাজেই ইফতারে ফলটি মুখে দেওয়া সুন্নত। সে কারণেই রমজান মাসে বাংলাদেশে খেজুরের চাহিদা অনেক বেড়ে যায়।

রমজান মাস উপলক্ষে দেশে প্রতিবছর মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণ খেজুর আমদানি করা হয়ে থাকে। এবছরও তার ব্যতিক্রময় হয়নি। দেখা যায় অন্যান্য দেশে রমজান আসলে দ্রব্য মূল্যের দাম কমিয়ে দেয় বিক্রেতারা সেদিক দিয়ে বাংলাদেশে হয় তার সম্পূর্ণ উল্টো।

এবার বাংলাদেশে দ্রব্য মূল্যের দামটা অনন্য বারের থেকে অনেক বেশি। বিক্রেতাদের দাবি, আমরা যেভাবে কিনেছি বিক্রি করছি ঠিক সেই হিসাবেই।

গাজীপুরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, সর্বোচ্চ দামে এক কেজি ১৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে আম্বার খেজুর। গাজীপুর যেহেতু শিল্পঅধ্যুষিত জেলা। এখানাকার অধিকাংশ মানুষ বিভিন্ন শিল্পকারখানায় কাজ করেন। তাদের আয় স্বল্প। যার কারণে এসব খেটে খাওয়া মানুষ আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের মিল রেখে খরচ করেন। ফলে, রমজান উপলক্ষে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে জিহাদি খেজুর। বাজারে এই খেজুর বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা কেজি দরে। অথচ গত রোজায় এই খেজুর বিক্রি হয়েছে ১৮০ টাকায়।

এছাড়াও, বাজারে ‘লুলু’ খেজুর ১ কেজি ৪০০ টাকা , ‘কালাস’ খেজুর ১ কেজি ৩৫০টাকা , ‘মেডজল’ খেজুর ১ কেজি ১৫০০ টাকা, ‘বরই’ খেজুর ১ কেজি ৬০০ টাকা, ‘আজোয়া’ খেজুর ১ কেজি ১১০০ টাকা, ‘মাবরুম’ খেজুর ১ কেজি ১৩০০ টাকা, ‘ধাপাস’ খেজুর ১ কেজি ৭০০ টাকা, ‘সুক্কারী’ খেজুর ১ কেজি ৬৫০ টাকা, ‘কামরাঙা আজোয়া’ খেজুর ১ কেজি ৬০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

 

খেজুর কিনতে ক্রেতাদের সাথে কথা বললে তারা বলেন, খেজুরের দাম বেশি, তবুও কিনতে হচ্ছে। ইফতারে খেজুর না থাকলে অপূর্ণতা লাগে। এজন্য খেজুর নিলাম ।

 

এক দিনমজুরের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, সবচেয়ে কমদামি খেজুর ২৮০ টাকা। এই দামেও কিনে খাওয়া আমাদের জন্য কষ্টকর। ভালো খেজুরের আশা করি না।

 

বিক্রেতাদের সাথে কথা বললে তারা বলেন,এবার খেজুর বেশি দামে কিনতে হয়েছে। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই দাম একটু বেশি। দাম বেশি হলেও বিক্রিতে প্রভাব পরেনি। গতবারের থেকে বেশিই বিক্রি হচ্ছে।

 

এদিকে, বাজারে তরমুজ ৮০ টাকা কেজি, মুড়ি ৮০ টাকা কেজি, শসা ১০০ টাকা কেজি, ছোলা ১১০ টাকা কেজি, পুদিনাপাতা ১০০ গ্রাম ২০ টাকা, ধনে পাতা ২০ টাকা মুঠি, লেবুর হালি ৬০ থেকে ৭০ টাকাতে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ দৈনিক লিখনী সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park